Home ভিডিও সংবাদ কয়েক দফা বন্যায় তলিয়ে গেছে ফসলী জমি ও ঘর বাড়ি

কয়েক দফা বন্যায় তলিয়ে গেছে ফসলী জমি ও ঘর বাড়ি

by Newsroom
কয়েক দফা বন্যায়

চলতি বছর কয়েক দফা বন্যায় ফসলী জমি ও ঘর বাড়ি তলিয়ে ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে দেশের উত্তরাঞ্চলের মানুষ। এদিকে, বন্যার পানি দীর্ঘ সময় আটকে থাকায় বন্যা কবলিত এলাকায় দেখা দিয়েছে চর্ম ও পানিবাহিত রোগ।

কিন্তু এসব এলাকায় নেই উন্নত চিকিৎসা ব্যবস্থা। ফলে দিন দিন বেড়েই চলছে ডায়রিয়া, আমাশয়, সর্দিকাশিসহ পানিবাহিত রোগে আক্রান্তের সংখ্য।

অবিরাম টানা বৃষ্টি ও উজানের পাহাড়ী ঢলে তিস্তা, যমুনা, ব্রহ্মপুত্রসহ সবগুলো নদীর পানি বেড়ে গাইবান্ধার ৫ উপজেলার ২ লাখেরও বেশি মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। অনেককে যেতে হয়েছে আশ্রয় কেন্দ্রে।

অনেকে আবার রয়েছে খোলা আকাশের নিচেও। এসব এলাকায় দেখা দিয়েছে বিশুদ্ধ পানি ও শুকনো খাবার সংকট। দীর্ঘদিন পানিবন্দি থাকায় দেখা দিয়েছে জ্বর, সর্দিকাশি, ডায়রিয়াসহ বিভিন্ন রোগ।

জেলায় ৬০ টির বেশি মেডিকেল টিম কাজ করার কথা থাকলেও, প্রত্যন্ত অঞ্চলে সঠিক চিকিৎসা না পাওয়ার অভিযোগ বন্যা কবলিতদের।

জেলার সিভিল সার্জন আবু হানিফ জানান, পানি বিশুদ্ধকরণ ট্যাবলেট ও খাবার স্যালাইন মজুদ রয়েছে। সেই সাথে মাঠে মেডিকেল টিমের সংখ্যা বাড়ানোর আশ্বাসও জানান তিনি।
চলতি বন্যায় কুড়িগ্রামের ৯টি উপজেলার ৭৫টি ইউনিয়নের মধ্যে ৫৬টি ইউনিয়নের ৪৭৫টি গ্রামের আড়াই লাখ মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। বন্যার পানিতে ডুবে মারা গেছে শিশুসহ ২২জন। রোগব্যাধিতে আক্রান্ত হয়েছে শতশত গবাদিপশু। নলকূপ ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে ৪২ হাজার ২৩৭টি।

এদিকে, বন্যার পানি বিপদসীমার নিচে নামতে শুরু করার পর থেকে দেখা দিয়েছে পানিবাহিত রোগের প্রকোপ। মাঠ পর্যায়ে মেডিকেল টিমের সেবা থেকে বঞ্চিত রয়েছে চরাঞ্চলের হাজার হাজার মানুষ।

কুড়িগ্রাম সিভিল সার্জন ডা. মো: হাবিবুর রহমান জানান, পানিবাহিত রোগ বিস্তাররোধে মাঠ পর্যায়ে ৮৫টি মেডিকেল টিম প্রস্তুত রয়েছে বলে জানান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা।
প্রতিবছর বন্যায় নিশ্চিত ক্ষতির হাত থেকে বাঁচাতে সরকার দ্রুত স্থায়ী ব্যবস্থা নেবে এমনটাই প্রত্যাশা সবার।

ভয়েস টিভিদ/ নিজস্ব প্রতিবেদক/ টিআর

You may also like